কর্ণফুলী টানেল অনুচ্ছেদ PDF Download,অনুচ্ছেদ নিয়োগ পরীক্ষায় আসা কর্ণফুলী টানেল

কর্ণফুলী টানেল অনুচ্ছেদ PDF Download,অনুচ্ছেদ নিয়োগ পরীক্ষায় আসা কর্ণফুলী টানেলকর্ণফুলী টানেল অনুচ্ছেদ PDF Download,অনুচ্ছেদ নিয়োগ পরীক্ষায় আসা কর্ণফু
Please wait 0 seconds...
Scroll Down and click on Go to Link for destination
Congrats! Link is Generated

  

‘কর্ণফুলী টানেল ’ সম্পর্কে একটি অনুচ্ছেদ লিখুন, অনুচ্ছেদ লিখুন কর্ণফুলী টানেল, অনুচ্ছেদ কর্ণফুলী টানেল , অনুচ্ছেদ কর্ণফুলী টানেল অনুচ্ছেদ, কর্ণফুলী টানেল অনুচ্ছেদ PDF Download,অনুচ্ছেদ নিয়োগ পরীক্ষায় আসা কর্ণফুলী টানেল

অনুচ্ছেদ কর্ণফুলী টানেল/বঙ্গবন্ধু টানেল - ১

কর্ণফুলী টানেল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেল, বঙ্গবন্ধু টানেল, বঙ্গবন্ধু টানেল বা বঙ্গবন্ধু টানেল নামেও পরিচিত, একটি নির্মাণাধীন টানেল যা কর্ণফুলী নদীর তলদেশে চলে। এই টানেল কর্ণফুলী নদীর দুই তীরকে সংযুক্ত করবে। এই টানেলের মাধ্যমে ঢাকা-চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়ক যুক্ত হবে। বঙ্গবন্ধু টানেলের পরিমাপ ৩.৪৩ কিলোমিটার। এটি নির্মিত হলে এটি হবে দক্ষিণ এশিয়া ও বাংলাদেশের নদীর তলদেশে দীর্ঘতম টানেল। এই টানেল নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে চায়না কমিউনিকেশন অ্যান্ড কনস্ট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেড। চট্টগ্রাম শহরতলী। টানেলটি নেভাল একাডেমি থেকে শুরু হয়ে চিটাগাং ইউরিয়া ফার্টিলাইজার লিমিটেড (দক্ষিণ তীরের আনোয়ারা প্রান্তে) কারখানার মধ্য দিয়ে নদীর দক্ষিণ তীরে পৌঁছাবে। 150 ফুট গভীরতায় কর্ণফুলী টানেল মিলবে মধ্য কর্ণফুলী নদীতে।

অন্যভাবে লেখা

অনুচ্ছেদ কর্ণফুলী টানেল/বঙ্গবন্ধু টানেল - ২

বাংলাদেশ নদীমাতৃক দেশ। কর্ণফুলী নদী চট্টগ্রামকে দুই ভাগে বিভক্ত করেছে। ভারী শিল্প অঞ্চল এবং শহরগুলি একপাশে অবস্থিত। কর্ণফুলী নদীর উপর নির্মিত হয়েছে ৩ (তিন)টি সেতু। এগুলো ভারী যান চলাচলের জন্য অপ্রতুল। রূপগত বৈশিষ্ট্যের উপর ভিত্তি করে, কর্ণফুলী নদীতে পলি জমা একটি উল্লেখযোগ্য সমস্যা এবং চট্টগ্রাম বন্দরের দক্ষতার জন্য হুমকিস্বরূপ। এ সমস্যা সমাধানে আরও সেতু নির্মাণের পরিবর্তে কর্ণফুলী নদীর তলদেশে টানেল নির্মাণ করা প্রয়োজন। চট্টগ্রামের দুটি এলাকাকে সংযুক্ত করতে সরকার কর্ণফুলী নদীর তলদেশে একটি টানেল নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয়। বাংলাদেশের বৃহত্তম শহর এবং প্রধান সমুদ্রবন্দর চট্টগ্রামও রাজধানী। কর্ণফুলী নদীর মোহনায় অবস্থিত চট্টগ্রাম বন্দর, যেখানে বাংলাদেশের বেশিরভাগ আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম চলে। প্রস্তাবিত টানেলটি সরাসরি চট্টগ্রাম বন্দর নগরীকে কর্ণফুলী নদীর ওপারে এবং পরোক্ষভাবে ঢাকা-চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের মাধ্যমে দেশের বাকি অংশের সাথে সংযুক্ত করবে। প্রস্তাবিত টানেলটি 3400 মিটার বিস্তৃত হবে। এটি 700.00 মিটার একটি নদীর প্রস্থে অবস্থিত। বর্তমান অবস্থা: চুক্তিটি 24.11.2015 তারিখে স্বাক্ষরিত হয়েছিল।

অন্যভাবে লেখা

অনুচ্ছেদ কর্ণফুলী টানেল/বঙ্গবন্ধু টানেল - ৩

চট্টগ্রামে কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ করা হচ্ছে। কর্ণফুলী নদীর উপর কর্ণফুলী টানেল নির্মিত হয়েছে। কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ শুরু হয় - 24 ফেব্রুয়ারী, 2019। শি জিনপিং এবং বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা 14 অক্টোবর, 2016 তারিখে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। পরে, 24 ফেব্রুয়ারি, 2019 তারিখে, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিকভাবে কর্ণফুলী টানেলের উদ্বোধন করেন। নির্মাণ. কর্ণফুলী টানেল সংযোগ করেছে - পতেঙ্গা নেভাল একাডেমী এবং চট্টগ্রামের আনায়ারায় বন্দর এলাকা। কর্ণফুলী টানেলের দৈর্ঘ্য- 3.4 কিমি। কর্ণফুলী টানেলের প্রস্থ ১০ মিটার। কর্ণফুলী টানেল-দুটি শহর-এক শহর নামেও পরিচিত। চায়না কমিউনিকেশন অ্যান্ড কনস্ট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেড (সিসিসিসি), চীন কর্ণফুলী টানেলের ঠিকাদার। কর্ণফুলী টানেল চালু: সময়সূচী অনুযায়ী, দুটি রাস্তাই 2021 সালের নভেম্বরের মধ্যে এবং পুরো প্রকল্প 2022 সালের ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ হবে। চীন কর্ণফুলী টানেলের পৃষ্ঠপোষক। কর্ণফুলী টানেলের প্রবেশ পথ - চট্টগ্রাম বিমানবন্দর থেকে 2 কিমি, কর্ণফুলী নদী। ডাউনস্ট্রিম নেভি কলেজের কাছে। সহযোগিতায় - চীনের এক্সিম ব্যাংক, বাংলাদেশ সরকার।


আরো ও সাজেশন:-

অন্যভাবে লেখা

অনুচ্ছেদ কর্ণফুলী টানেল/বঙ্গবন্ধু টানেল - ৪

এটি কর্ণফুলী নদীর তলদেশে নির্মিত প্রথম টানেল। চায়না এক্সিম ব্যাংক সরকারের অর্থায়নকারী অংশীদার। চায়না কমিউনিকেশন অ্যান্ড কনস্ট্রাকশন কোম্পানি, (CCCC) কনস্ট্রাক্টর। প্রকল্পের ব্যয় ছিল 10,374 কোটি টাকা। প্রকল্পটির মোট দৈর্ঘ্য 9.39 কিলোমিটার। মূল টানেলের দৈর্ঘ্য 3.32 কিমি। প্রকল্পটি 2022 সালের ডিসেম্বরে শেষ হবে। বিশ্বের 47টি দেশে পানির নিচে টানেল নির্মাণ করা হচ্ছে। টানেলটি চট্টগ্রাম বন্দর ও আনোয়ারা উপজেলাকে সংযুক্ত করবে। চলতি বছরে ৬৩ লাখ যানবাহন চলাচল করবে। এর মানে হল যে প্রতিদিন 17,000 260 গাড়ি চলতে পারে। বঙ্গবন্ধু টানেল নির্মাণ শেষ হলে দেশের জিডিপি ০.১৬৬ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে। চট্টগ্রাম কক্সবাজার থেকে ৪০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। দূরত্ব কমে যাবে। চীনের সাংহাইয়ের মতোই চট্টগ্রাম হবে এক-শহর-দুই শহর। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অর্থনৈতিক কেন্দ্র হবে কক্সবাজার। 14 অক্টোবর, 2016 তারিখে চীনের রাষ্ট্রপতি এবং বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শি জিনপিং এই প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা 24 ফেব্রুয়ারি, 2019 তারিখে আনুষ্ঠানিকভাবে টানেলটি উদ্বোধন করেন।

[ বি:দ্র: উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

অন্যভাবে লেখা

অনুচ্ছেদ কর্ণফুলী টানেল/বঙ্গবন্ধু টানেল - ৫

কর্ণফুলী টানেলের মূল নাম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেল। একে সংক্ষেপে বলা হয় বঙ্গবন্ধু টানেল। কর্ণফুলী নদীর নিচে টনেলটির অবস্থান থাকার কারণে জনসাধারণের কাছে টানেলটি কর্ণফুলী টানেল নামে পরিচিতি লাভ করেছে। বাংলাদেশের বড় বড় মেগা প্রকল্পের মধ্যে কর্ণফুলী টানেল প্রকল্প বা বঙ্গবন্ধু টানেল প্রকল্প অন্যতম একটি।

কর্ণফুলী টানেল কর্ণফুলী নদীর দুই তীরকে সংযুক্ত করে। এই টানেলটির মধ্যে ধাকা-চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়ক সংযুক্ত হবে। ফলে আরো কম সময়ে ঢাকা, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার যাওয়া যাবে। কর্ণফুলী টানেল বা বঙ্গবন্ধু টানেলটির দৈর্ঘ্যে ৩.৪৩ কিলোমিটার।

টানেলটি সম্পূর্ণ রূপে শেষ হলে এটি হবে বাংলাদেশের প্রথম টানেল বা সুড়ঙ্গ এবং দক্ষিণ এশিয়ায় নদী তলদেশের প্রথম ও দীর্ঘতম সড়ক সুড়ঙ্গপথ। কর্ণফুলীর নদীর মধ্যভাগে সুড়ঙ্গটি অবস্থান করবে ১৫০ মিটার ফুট গভীরে।

২০১৬ সালের ১৮ই অক্টোবর টানেলটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও চীনের রাষ্ট্রপতি শি জিন পিং ভিত্তিপ্রস্তরটি স্থাপন করেন। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৯ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি কর্ণফুলী টানেল বা বঙ্গবন্ধু টানেলের নির্মাণ কাজ আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্ভোধন করেন। টানেলটি এখনো নির্মাধীন অবস্থায় রয়েছে। ২০২২ সালের মধ্যে টানেলটির নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও এখনো তা শেষ হয়নি। ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে টানেলটি উদ্ভোধণ হওয়ার কথা।

টানেলটির নির্মাণ ব্যায় ধরা হয়েছে ৩০ হাজার ৮৮০ কোটি টাকা। ৫ হাজার ৯১৩ কোটি টাকা চীনের এক্সিম ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়া হয়েছে এবং বাকী টাকা বাংলাদেশ সরকার অর্থায়ন করছে। চীনের এক্সিম ব্যাংক থেকে ২০ বছর মেয়াদী ঋণ নেওয়া হয়েছে এবং সুদের হার ২ শতাংশ।

إرسال تعليق

আমাদের সাথে থাকুন
Cookie Consent
We serve cookies on this site to analyze traffic, remember your preferences, and optimize your experience.
Oops!
It seems there is something wrong with your internet connection. Please connect to the internet and start browsing again.
Site is Blocked
Sorry! This site is not available in your country.