hsc ভোকেশনাল ইলেকট্রনিক্স কন্ট্রোল এন্ড কমিউনিকেশন -১ ১ম পত্র ১১শ শ্রেণি ১ম সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান/ উত্তর ২০২১

hsc ভোকেশনাল ইলেকট্রনিক্স কন্ট্রোল এন্ড কমিউনিকেশন -১ ১ম পত্র ১১শ শ্রেণি ১ম সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান/ উত্তর ২০২১ hsc ভোকেশনাল ইলেকট্রনিক্স কন্ট্র
Please wait 0 seconds...
Scroll Down and click on Go to Link for destination
Congrats! Link is Generated

অ্যাসাইনমেন্ট: বৈদ্যুতিক নেটওয়াক।

শিখনফল: 

  • বৈদ্যুতিক নেটওয়ার্কের ধারণা 
  • বৈদ্যুতিক নেটওয়ার্কের প্রকারভেদ
  • এ্যাকটিভ ও  প্যাসিভ নেটওয়ার্ক
  • কারেন্ট সোর্স ও ভোল্টেজ সোর্সের বর্ননা করতে পারবে।

নির্দেশনা :

  • বৈদ্যুতিক নেটওয়ার্কের ধারণা ব্যাখ্যা করতে হবে
  • বৈদ্যুতিক নেটওয়ার্কের  প্রকারভেদ বর্ণনা করতে হবে
  • এ্যাকটিভ ও প্যাসিভ নেটওয়ার্ক বর্ণনা করতে হবে 
  • কারেন্ট সোর্স ও ভোল্টেজ সোর্স বর্ণনা করতে হবে

উত্তর সমূহ:

এসাইনমেন্ট সম্পর্কে যে কোন প্রশ্ন আপনার মতামত জানাতে পারেন আমাদের কে লাইক পেজ : Like Page ইমেল : assignment@banglanewsexpress.com

  • বৈদ্যুতিক নেটওয়ার্কের ধারণা ব্যাখ্যা করতে হবে

কোন একটি বৈদ্যুুতিক শক্তি তা সে তাপ ,সৌর , বায়ু বা জলবিদ্যুুত যাই হোক না কেন এর উৎপাাদনের জন্য একটি নির্দিষ্ট স্থানের প্র্র্রয়োজন যেখাানে এর জন্য জমি , শ্রমিক ,কাঁচামাল ও পরিকাঠামো পর্য্যাপ্ত সহজ ও ভাবে উপলব্ধ ।

সেখানে কিন্তু পর্য্যাপ্ত গ্রাহক নাাও থাকতে পারে । অন্যদিকে বিদ্যুতের গ্রাহকরা সমগ্র্র দেশে প্রত্যেক বাাড়িতে ছড়িয়ে । তাই, গ্রাহক ও উৎপাদকেের মধ্যে বিদ্যুত সরবরাহ অক্ষুন্ন রাখতে একটি নিরবচ্ছিন্ন সংযোগের প্রয়োজন ৷

এ ছাড়া বিদ্যুতকেে ব্যবহারের উপযোগী রাখতে গ্রাহকের প্রান্তে বিদ্যুতের ভোল্টেজ ও তড়িৎ প্রবাহের মান স্থায়ীভাবে এক নির্দিষ্ট সীমার মধ্যে থাকা দরকার।

এর জন্য সুবিধামত স্থানে সরবরাহের প্রাথমিক ভোল্টেজের অবনমন বা উন্নয়ন ঘটিয়ে তা স্থানীয় এক বৃহৎ সংখ্যার গ্রাহকের ব্যবহারের জন্য পরিমিত ও গ্রহনযোগ্য করে তোলা আবশ্যক কারন উৎসের ভোল্টেজ হয় সরবরাহের জন্য উপযোগী, খরচের জন্য নয় ।

পরিশেেষে আছে বিদ্যুতের সামগ্রিক উৎপাদন ও খরচের মধ্যে সমতা রাখার জন্য প্রয়োজনীয় কেন্দ্রীয় যান্ত্রিক ব্যবস্থা যা সাধাারনত স্বয়ংক্র্রিয় হয়ে থাকে ৷

উপরোক্ত তিনটি চাহিদার জন্য একটি দেশব্যাাপী সংযোগ পরিকাঠামো একান্তই প্রয়োজন যা দেশের সব কটি বিদ্যুত উৎপাদক ও গ্রাহককে পরিবাহী ও পরিষেবা পরিমিতকারী উপকেন্দ্র দ্বারা সংযুক্ত করবে । এই সংযোোগকারি পরিকাঠামোটি হল সমগ্র দেশের বা একটি ব্যাপক অঞ্চলের বৈদ্যুতিক নেটওয়ার্ক ( Electricity supply grid) ।

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

  • বৈদ্যুতিক নেটওয়ার্কের প্রকারভেদ বর্ণনা করতে হবে
  • অ্যাকটিভ নেটওয়ার্ক 
  • প্যাসিভ নেটওয়ার্ক 
  • লিনিয়ারর নেটওয়ার্ক 
  • নন লিনিয়ার নেটওয়ার্ক 
  • ইউনিল্যাটারাল নেটওয়ার্ক
  • বাইল্যাটারাল নেটওয়ার্ক

১. অ্যাকটিভ নেটওয়ার্ক :বৈদ্যুতিক সোর্স এবং সার্কিট প্যারামিটারের সমন্বয়ে যে নেটওয়ার্ক গঠিত হয় তাকে অ্যাকটিভ নেটওয়ার্ক বলে।

২.প্যাসিভ নেটওয়ার্ক : যে নেটওয়ার্ক কোন বৈদ্যুতিক সোর্স থাকে না কিন্তু সার্কিট প্যারামিটার বিদ্যমান থাকে তাকে প্যাসিভ নেটওয়ার্ক বলে।

৩.লিনিয়ার নেটওয়ার্ক : যে নেটওয়ার্কে ভোল্টেজ বা কারেন্ট পরিবর্তনের সাথে সার্কিট প্যারামিটারের কোন পরিবর্তন হয় না তাকে লিনিয়ার নেটওয়ার্ক বলে।

৪. নন লিনিয়ার :যে নেটওয়ার্কে ভোল্টেজ বা কারেন্ট পরিবর্তনের সাথে সার্কিট প্যারামিটার বলে

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

  • এ্যাকটিভ ও প্যাসিভ নেটওয়ার্ক বর্ণনা করতে হবে 

একটিভ কম্পোনেন্ট(Active components)

Active একটি ইংরেজি শব্দ যার বাংলা অর্থ হচ্ছে সক্রিয়। Component শব্দের বাংলা অর্থ হচ্ছে উপাদান। একটিভ কম্পোনেন্ট হচ্ছে সক্রিয় উপাদান। একটিভ কম্পোনেন্ট এমন উপাদান বা ডিভাইস যা সার্কিটের শক্তি সরবরাহ করতে সক্ষম।উদাহরণ – ব্যাটারি, ডায়োড, ট্রানজিস্টর ইত্যাদি।

অ্যাক্টিভ কম্পনেন্ট উদাহরণসহ ব্যাখ্যা

যেমনটি আমরা জানি যে ডায়োড অ্যাক্টিভ কম্পনেন্ট।তাই এটির পরিচালনার জন্য এটিতে একটি  বাহ্যিক উৎসের প্রয়োজন হয়। কারণ যদি আমরা একটি সার্কিট এর মধ্যে একটি ডায়োড সংযোগ করি এবং তারপরে সেই সার্কিটটি ভোল্টেজ এর সাথে যুক্ত করি সরবরাহ ভোল্টেজ জিরো পয়েন্ট 3 জার্মেনিয়ামের ক্ষেত্রেঃ জিরো পয়েন্ট 7 সিলিকনের ক্ষেত্রে না পৌঁছানো পর্যন্ত  ডায়োড কারেন্ট স্লো করবেনা ।আশা করি বুঝতে পেরেছেন।

প্যাসিভ কম্পোনেন্ট(Passive Components)

Passive শব্দের বাংলা অর্থ নিষ্ক্রিয় / জড় কম্পোনেন্ট এমন ডিভাইস যারা অপারেশনের জন্য কোন বাহ্যিক উৎসের প্রয়োজন হয় না এবং সার্কিটে ভোল্টেজ বা কারেন্টের আকারে শক্তি সঞ্চয় করতে সক্ষম।উদাহরণ – রেজিস্টর, ক্যাপাসিটর, ইন্ডাক্টর ইত্যাদি।

প্যাসিভ কম্পোনেন্ট এর উদাহরণসহ ব্যাখ্যা

যেমনটি আমরা জানি বেসিক কম্পোনেন্ট এর কাজ শুরু করার জন্য বাইরে থেকে কোন শক্তির প্রয়োজন হয় না। আগে ডায়োড এ যেমন 0.3 ও 0.7 ভোল্ট প্রয়োজন ছিল ডায়োড টি কে কাজ করার জন্য কিন্তু আমরা যখন কোন রেজিস্টারকে কোন সার্কিটের সাথে যুক্ত করি।এটি অটোমেটিক তার কাজ শুরু করে দেয়। এতে আমাদের কোন ভোল্টেজ দিতে হবে না। যদি আপনি একটিভ কম্পোনেন্ট এর  উদাহরণটি ভালো করে বুঝে থাকেন তাহলে প্যাসিভ কম্পনেন্ট আপনি খুব সহজেই বুঝতে পারবেন।

একটিভ কম্পোনেন্ট ও প্যাসিভ কম্পোনেন্ট এর মধ্যে পার্থক্য

প্রাকৃতিক সোর্সের উপর নির্ভর করে – যে সকল ডিভাইস সার্কিটে পাওয়ার / এনার্জি প্রদান করে থাকে তাদেরকে একটিভ কম্পোনেন্ট(Active components) বলে।
প্রাকৃতিক সোর্সের উপর নির্ভর করে – যে সকল কম্পোনেন্ট এনার্জি প্রদান করতে পারে না কিন্তু জমা রাখতে পারে বা সার্কিটের পাওয়ারকে কাজে লাগায় সেগুলোই প্যাসিভ কম্পোনেন্ট(Passive Components)
উদাহরণ – (Active components)এক্টিভ কম্পোনেন্টঃ ব্যাটারি, ডায়োড, ট্রানজিস্টর ইত্যাদি।
উদাহরণ – (Passive Components)প্যাসিভ কম্পোনেন্টঃ রেজিস্টর, ক্যাপাসিটর, ইন্ডাক্টর ইত্যাদি।


কাজ – (Active components)একটিভ কম্পোনেন্টঃ ভোল্টেজ কিংবা কারেন্ট ফর্মে এনার্জি উৎপাদন করে।
কাজ – (Passive Components)প্যাসিভ কম্পোনেন্টঃ ভোল্টেজ কিংবা কারেন্ট ফর্মে এনার্জি জমা রাখে।


পাওয়ার গেইন – (Active components)একটিভ কম্পোনেন্টঃ এটি পাওয়ার গেইন সরবরাহ করতে পারে।
পাওয়ার গেইন – প্যাসিভ কম্পোনেন্টঃ এটিও পাওয়ার গেইন সরবরাহ করতে পারে।

কারেন্টের প্রবাহ – (Active components)একটিভ কম্পোনেন্টঃ একটিভ কম্পোনেন্ট কারেন্ট কে কন্ট্রোল করতে পারে।
কারেন্টের প্রবাহ – (Passive Components)প্যাসিভ কম্পোনেন্টঃ প্যাসিভ কম্পোনেন্ট কারেন্ট কে কন্ট্রোলে করতে পারে না।


বাহ্যিক সোর্স প্রয়োজন – (Active components)একটিভ কম্পোনেন্টঃ অপারেশনের জন্য বাহ্যিক সোর্সের প্রয়োজন হয়।
বাহ্যিক সোর্স প্রয়োজন – (Passive Components)প্যাসিভ কম্পোনেন্টঃ প্যাসিভ কম্পোনেন্ট এনার্জি গ্রহন করে থাকে।

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

  • কারেন্ট সোর্স ও ভোল্টেজ সোর্স বর্ণনা

ভোল্টেজ সোর্স কি?

ভোল্টেজ সোর্স এমন একটি উৎস যার লোড পরিবর্তন হলেও নির্দিষ্ট পরিমান ভোল্টেজ সরবরাহ করতে থাকে।

ভোল্টেজ সোর্স এর ইন্টারনাল রেজিস্ট্যান্স খুবই কম।

Source Transformation
ভোল্টেজ সোর্সের প্রতিক ছবি কপি/voltagelab

কারেন্ট সোর্স কি?

কারেন্ট সোর্স এমন একটি উৎস যার লোড পরিবর্তন হলেও নির্দিষ্ট পরিমান কারেন্ট সরবরাহ করতে থাকে।

কারেন্ট সোর্স এর ইন্টারনাল রেজিস্ট্যান্স অসীম।

Source Transformation
কারেন্ট সোর্সের প্রতিক ছবি কপি/voltagelab

ভোল্টেজ সোর্সকে কারেন্ট সোর্সে রুপান্তরের পদ্ধতি:

ভোল্টেজ সোর্সকে কারেন্ট সোর্সে রুপান্তর করতে হলে আমাদেরকে পর্যায়ক্রমে কয়েকটি ধাপ অনুসরণ করতে হয়। নিম্নে উদাহরণসহ ধাপ সমূহ বর্ণনা করা হলোঃ

Source Transformation
চিত্র ১ ছবি কপি/voltagelab

ধাপ ১: প্রথমে ভোল্টেজ সোর্স ও এর সংলগ্ন রেজিস্ট্যান্সকে মূল সার্কিট (চিত্র ১) হতে আলাদা করে নিতে হবে। (চিত্র ২)

Source Transformation
চিত্র ২ ছবি কপি/voltagelab

ধাপ ২: এবার AB প্রান্তকে শর্ট করে একটি একক পূর্নাঙ্গ সার্কিটে রুপান্তর করতে হবে। (চিত্র ৩)

Source Transformation
চিত্র ৩ ছবি কপি/voltagelab

ধাপ ৩: ওহমের সূত্র (V = IR, I = V/R) অনুযায়ী সার্কিট হতে I এর মান নির্ণয় করতে হবে।

ধাপ ৪: I এর মানকে কারেন্ট সোর্স হিসেবে বিবেচনা করতে হবে।

ধাপ ৫: ভোল্টেজ সোর্স সংলগ্ন সিরিজ রেজিস্ট্যান্সকে কারেন্ট সোর্সের সাথে প্যারালালে সংযোগ করতে হবে। (চিত্র ৪)

Source Transformation
চিত্র ৪ ছবি কপি/voltagelab

ধাপ ৬: এবার তৈরিকৃত সম্পূর্ণ সার্কিটকে মূল সার্কিটের পূর্বের স্থানে সংযোগ করতে হবে। (চিত্র ৫)

Source Transformation
চিত্র ৫ ছবি কপি/voltagelab

উল্লেখ্য যে, ভোল্টেজ সোর্সকে কারেন্ট সোর্সে রুপান্তর করতে হলে প্রথম শর্ত হলো, ভোল্টেজ সোর্স এর সাথে সিরিজে রেজিস্টর থাকতে হবে।

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল  কপিরাইট: (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

এসাইনমেন্ট সম্পর্কে যে কোন প্রশ্ন আপনার মতামত জানাতে পারেন আমাদের কে লাইক পেজ : Like Page ইমেল : assignment@banglanewsexpress.com

  • ২০২১ সালের SSC পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ২০২১ সালের HSC পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ২০২১ সালের ৯ম/১০ শ্রেণি ভোকেশনাল পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ২০২১ সালের HSC (বিএম-ভোকে- ডিপ্লোমা-ইন-কমার্স) ১১শ ও ১২শ শ্রেণির অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ২০২২ সালের ১০ম শ্রেণীর পরীক্ষার্থীদের SSC ও দাখিল এসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ২০২২ সালের ১১ম -১২ম শ্রেণীর পরীক্ষার্থীদের HSC ও Alim এসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ৬ষ্ঠ শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১ লিংক
  • ৭ম শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১ লিংক
  • ৮ম শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১ লিংক
  • ৯ম শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১ লিংক

এখানে সকল প্রকাশ শিক্ষা বিষয় তথ্য ও সাজেশন পেতে আমাদের সাথে থাকুন ।

আমাদের YouTube এবং Like Page

Post a Comment

আমাদের সাথে থাকুন
Cookie Consent
We serve cookies on this site to analyze traffic, remember your preferences, and optimize your experience.
Oops!
It seems there is something wrong with your internet connection. Please connect to the internet and start browsing again.
Site is Blocked
Sorry! This site is not available in your country.